বাংলাদেশের ক্যাডেট কলেজ: ইতিহাস, তালিকা

কর্তৃক সরকারি আদেশ
0 মন্তব্য 3182 views

ভূমিকাঃ

ক্যাডেট কলেজ হল ইংরেজি পাবলিক স্কুলের আদলে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত আবাসিক বিশেষ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ। তারা দেশের সশস্ত্র বাহিনীর সরাসরি ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধানে রয়েছে এবং তাদের মধ্যে সামরিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তারা জাতীয় পাঠ্যক্রম এবং পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) দ্বারা একটি ইংরেজি সংস্করণের সাথে নির্ধারিত জাতীয় পাঠ্যক্রম অনুসরণ করে এবং পাঠ্যক্রমিক এবং সহ-পাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমের উপর জোর দেয়[ ] এই নিবন্ধে আপনি বাংলাদেশের ক্যাডেট কলেজ এর ইতিহাস, লক্ষ্য, ভর্তি প্রক্রিয়া, শৃঙ্খলাবিধি, আবাসন, সুযোগ-সুবিধা এবং অন্যান্য বিষয়ের সাথে পরিচিত হতে পারবেন । 

আরো পড়তে পারেনঃ সরকারী চাকরি অনুযায়ী কাজ ২০২৩ঃ কর্তব্য তালিকা 

বাংলাদেশের প্রথম ক্যাডেট কলেজ ও সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ

বাংলাদেশের প্রথম ক্যাডেট কলেজ ছিল ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ, যেটি ২৮ এপ্রিল ১৯৫৮ সালে নিউজিল্যান্ডের উইলিয়াম মরিস ব্রাউন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত, এটি পূর্ব পাকিস্তান ক্যাডেট কলেজ[ 2]নামে পরিচিত ছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর, ১৯৭২ সালের ক্যাডেট কলেজ আদেশ (PO 89) ক্যাডেট কলেজগুলির কাউন্সিল এবং গভর্নিং বডি পুনর্গঠনের জন্য নির্দেশিকা জারি করে। নতুন বিধান অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রী পদাধিকারবলে পরিষদের চেয়ারম্যান এবং বিভাগীয় কমিশনার গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান হন। ক্যাডেট কলেজ আইন ১৯৭৩-এর বিধানে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। ক্যাডেট কলেজগুলির দুটি ব্যবস্থাপনা সংস্থাকে আরও পুনর্গঠন করা হয় এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়কে সরাসরি নিয়ন্ত্রণের দারিত্ব দেয়া হয়। সরকারের পরিবর্তনের কারণে ব্যবস্থাপনা কাঠামোতে পর্যায়ক্রমে পরিবর্তন হয়েছে, তবে মৌলিক নীতিগুলি এখনও অবরুদ্ধ থেকে গেছে। বর্তমানে, বাংলাদেশ সেনা আইনের অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল, সমস্ত ক্যাডেট কলেজের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান এবং প্রতিরক্ষা সচিব তাদের তহবিল এবং পরিচালনা সংক্রান্ত সমস্ত বিষয়ে সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ[1]।

বাংলাদেশে ক্যাডেট কলেজ মোট কয়টি? 

বাংলাদেশে বর্তমানে 12টি ক্যাডেট কলেজ রয়েছে যার মধ্যে তিনটি মেয়েদের জন্য । তালিকাটি নিম্নরূপ:

      1. ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ
      2. ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ
      3. মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ
      4. রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ
      5. সিলেট ক্যাডেট কলেজ
      6. রংপুর ক্যাডেট কলেজ
      7. বরিশাল ক্যাডেট কলেজ
      8. পাবনা ক্যাডেট কলেজ
      9. ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজ
      10. ফেনী গার্লস ক্যাডেট কলেজ
      11. জয়পুরহাট গার্লস ক্যাডেট কলেজ
      12. কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ

ক্যাডেট কলেজগুলির লক্ষ্য কি?

  • ক্যাডেট কলেজগুলির লক্ষ্য সুশৃঙ্খল, নিবেদিত এবং আত্মত্যাগী তরুণ নাগরিক তৈরি করা, যারা বিশ্বব্যাপী যোগ্য হওয়ার জন্য শ্রেষ্ঠত্বের প্রচেষ্টা করে।
  • একটি ভারসাম্যপূর্ণ শিক্ষা প্রদান করা, যা একাডেমিক, শারীরিক, নৈতিক এবং সামাজিক বিকাশকে একত্রিত করে।
  • মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিং, মিলিটারি এবং সিভিল সার্ভিসের মতো পেশাদার প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করা।

ভর্তি প্রক্রিয়াঃ

ক্যাডেট কলেজগুলির একটি কঠোর ভর্তি প্রক্রিয়া রয়েছে যাতে লিখিত, মৌখিক এবং মেডিকেল পরীক্ষা এবং ISSB (ইন্টার সার্ভিসেস সিলেকশন বোর্ড) জড়িত থাকে। শুধুমাত্র ষষ্ঠ শ্রেণীতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। প্রতি কলেজে প্রতি ব্যাচ ৫০ আসনের মধ্যে সীমাবদ্ধ। শিক্ষাবর্ষকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে: জানুয়ারি-এপ্রিল, মে-আগস্ট এবং সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর। প্রতিটি মেয়াদে দুটি মাসিক পরীক্ষা এবং একটি মেয়াদী চূড়ান্ত পরীক্ষা রয়েছে।

শিক্ষার্থীদের অবশ্যই পালনীয় বিষয়ঃ

ক্যাডেট কলেজগুলির একটি কঠোর শৃঙ্খলাবিধি রয়েছে যার জন্য ছাত্রদের ইউনিফর্ম পরা, প্রতিদিনের রুটিন অনুসরণ করা, আদেশ পালন করা, সিনিয়র এবং শিক্ষকদের সম্মান করা, ড্রিল, প্যারেড এবং খেলাধুলায় অংশগ্রহণ, পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা, ধূমপান, মদ্যপান এবং মাদক এড়িয়ে চলা এবং সততা এবং মর্যাদা বজায় রেখে চলা।

এছাড়াও ক্যাডেটরা বিভিন্ন ক্লাব, সমিতি এবং সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশ নেয়া, যা তাদের প্রতিভা এবং আগ্রহকে উৎসাহিত করে।

আবাসনঃ

ক্যাডেট কলেজগুলির একটি হাউস সিস্টেম রয়েছে যা শিক্ষার্থীদের চার বা পাঁচটি বাড়িতে বিভক্ত করে, যা ঐতিহাসিক বা জাতীয় ব্যক্তিত্বের নামে নামকরণ করা হয়। প্রতিটি বাড়িতে একজন হাউসমাস্টার, একজন হাউস টিউটর, একজন হাউস ক্যাপ্টেন এবং একজন হাউস প্রিফেক্ট থাকে যারা বাড়ির সদস্যদের কল্যাণ ও কর্মক্ষমতার জন্য দায়ী। বাড়িগুলি সারা বছর ধরে একাডেমিক, খেলাধুলা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে একে অপরের সাথে প্রতিযোগিতা করে।

শিক্ষার্থীদের সুযোগ-সুবিধাঃ

ক্যাডেট কলেজে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা রয়েছে যেমন প্রশস্ত শ্রেণীকক্ষ, সুসজ্জিত ল্যাবরেটরি, লাইব্রেরি, কম্পিউটার সেন্টার, অডিটোরিয়াম, মসজিদ, ডাইনিং হল, হাসপাতাল, খেলার মাঠ, সুইমিং পুল, জিমনেসিয়াম এবং শুটিং রেঞ্জ। এছাড়াও তাদের ক্যাডেট এবং কর্মীদের জন্য আবাসিক সুবিধা রয়েছে যেখানে “হাউস”, কোয়ার্টার, গেস্ট হাউস এবং মেস নামে পরিচিত আলাদা ডরমিটরি রয়েছে।

উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন শিক্ষার্থীঃ 

ক্যাডেট কলেজগুলির অসামান্য প্রাক্তন ছাত্র তৈরির একটি গর্বিত ঐতিহ্য রয়েছে যারা রাজনীতি, প্রশাসন, বিচার বিভাগ, শিক্ষা, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, চিকিৎসা, প্রকৌশল, সামরিক এবং খেলাধুলার মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করেছে। নিচে কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রাক্তন শিক্ষার্থীগণের নাম উল্লেখ করা হলো । (তালিকাটি জোষ্ঠ্যতার ভিত্তিতে নয় । 

    • শেখ হাসিনা (বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী)
    • জেনারেল মঈন উ আহমেদ (সাবেক সেনাপ্রধান)
    • মেজর জেনারেল তারেক আহমেদ সিদ্দিক (প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা)
    • বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন (বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি)
    • ডক্টর আতিউর রহমান (বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর)
    • ডাঃ আনিসুজ্জামান (বিশিষ্ট স্কলার)
    • ডক্টর মুহাম্মদ জাফর ইকবাল (বিখ্যাত লেখক)
    • ডক্টর কামাল হোসেন (বিশিষ্ট আইনজীবী)
    • ডঃ রেহমান সোবহান (বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ)
    • ডঃ এ কে আব্দুল মোমেন (বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী)
    • ডাঃ দীপু মনি (বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী)
    • ডাঃ হাছান মাহমুদ (বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী)
    • মেজর জেনারেল (অব.) তারেক আহমেদ সিদ্দিক (প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা)
    • মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশীদ (বিডিআরের সাবেক মহাপরিচালক)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ রফিকুল ইসলাম (ডিজিএফআই-এর সাবেক মহাপরিচালক)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ শফিকুর রহমান (বিজিবির সাবেক মহাপরিচালক)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার (এনএসআই-এর সাবেক মহাপরিচালক)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ আব্দুর রব হাওলাদার (এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ আসহাব উদ্দিন (বিটিআরসির সাবেক চেয়ারম্যান)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ আব্দুল মতিন (সাবেক চেয়ারম্যান রাজউক)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ শহিদুল ইসলাম (ওয়াসার সাবেক চেয়ারম্যান)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ মাসুদ রাজ্জাক (বিআইডব্লিউটিএর সাবেক চেয়ারম্যান)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ আবুল কালাম আজাদ (সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের সাবেক প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ মাহবুবুর রহমান (সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের সাবেক প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ শামসুল হক (ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের সাবেক কমান্ড্যান্ট)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ সাইফুল আবেদীন (ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজের সাবেক কমান্ড্যান্ট)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ এমদাদ-উল-বারী (সাবেক কমান্ড্যান্ট মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ মিজানুর রহমান খান (আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজের সাবেক কমান্ড্যান্ট)
    • মেজর জেনারেল (অব.) মোঃ মুস্তাফিজুর রহমান (সশস্ত্র বাহিনী মেডিকেল ইনস্টিটিউটের সাবেক কমান্ড্যান্ট)
    • মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান, afwc, psc, Ph.D., G+ 1st প্রিন্সিপাল, AFMC

উপসংহার

ক্যাডেট কলেজ বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। তারা শিক্ষার্থীদের জন্য একটি সামগ্রিক শিক্ষা গ্রহণের একটি অনন্য সুযোগ প্রদান করে যা তাদের ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগের জন্য প্রস্তুত করে। তারা তাদের মধ্যে দেশপ্রেম, শৃঙ্খলা, নেতৃত্ব এবং সেবার মূল্যবোধ জাগিয়ে তোলে। ক্যাডেট কলেজগুলি অনেক কৃতী প্রাক্তন ছাত্র তৈরি করেছে যারা জাতির উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে অবদান রেখেছে। ক্যাডেট কলেজ প্রকৃতপক্ষে সকল বাংলাদেশীদের জন্য গৌরব ও অনুপ্রেরণার উৎস।

রিলেটেড আরও পোস্ট

মতামত দিন

error: Content is protected !!